Latest news

এক বঙ্গোপসাগরে দুই আইন বন্ধ করো!জেলেদের মানববন্ধন

রবিবার, ২৮ জুন ২০২০ | ১০:২৭ অপরাহ্ণ | 14 বার

জুলাই ২০২০
রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
« জুন    
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
এক বঙ্গোপসাগরে দুই আইন বন্ধ করো!জেলেদের মানববন্ধন

এক বঙ্গোপসাগরে দুই আইন বন্ধের দাবীতে এবং ভারত-বাংলাদেশের বঙ্গোপসাগরে এক-ই সময়ে ৬৫ দিনের অবরোধ দেয়ার দাবী অন্যথায় ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা বন্ধ’সহ কয়েক দফা দাবি দাওয়া নিয়ে শনিবার সকাল ১০ টায় বরগুনার পাথরঘাটা মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে পাথরঘাটার শেখ রাসেল স্কায়ারে জড়ো হন কয়েক হাজার মৎস্যজীবী।
ওই মানববন্ধনের আয়োজন করে বরগুনা জেলা মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতি, বরগুনা জেলা ফিশিং ট্রলার শ্রমিক ইউনিয়ন, পাথরঘাটা আড়ৎদার সমিতি সহ বেশ ক’টি মৎস্যজীবী সংগঠন।

মানববন্ধন শেষে মৎস্যজীবীরা পাথরঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মো. মাসুম আকন, বিএফডিসি আড়ৎদার সমিতির সভাপতি জাহাঙ্গীর জোমাদ্দার, বরগুনা জেলা ফিশিং ট্রলার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আ. মন্নান হাওলাদার, সাধারণ মো. দুলাল মিয়া, মৎস্য ব্যবসায়ী ও পাথরঘাটা ট্রলার মেশিনারি সমিতির সভাপতি মহিউদ্দিন এসমে, ছাত্রনেতা এনামুল হক প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশী জলসীমায় প্রতি বছর ২০ মে থেকে ২৬ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিনের মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। অথচ একই বঙ্গোপসাগরে ভারতের জেলেরা কোন বাধা ছাড়া মাছ ধরে নিয়ে যায় বাংলাদেশী জলসীমায় অনুপ্রবেশ করে ভারতীয়রা মাছ ধরে নেয়। ইলিশের প্রজনন মৌসুমে ২২দিন আমরা মাছ ধরা থেকে বিরত থাকি এসময় ভারতীয় জেলেরা মাছ ধরে নিয়ে যায়। এতে ভারতীয় জেলেরা লাভবান হয় আর বাংলাদেশী জেলেরা অসহায় হয়ে পরছে।

মাবববন্ধনে বক্তারা দাবী করেন, বঙ্গোপসাগরে ১৫ জুন থেকে ভারতের জেলেরা মাছ ধরা শুরু করলেও বাংলাদেশী জেলেদের ৬৫ দিনের অবরোধ শেষ হবে ২৬ জুলাই। আর সমুদ্রে বাংলাদেশ ভারত সীমানা অতিক্রমে মাছের কোন বাধা নেই, তাই মৎস্য সম্পদ রক্ষায় বাংলাদেশের জেলেদের ত্যাগ কোন কাজেই অসছেনা।

জেলা মৎস্যজীবী নেতারা জানান দেশের এই মহামারী করোনার ক্লান্তি লগ্নে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে চাঙ্গা রাখতে ৬৫ দিনের মৎস্য অবরোধ প্রত্যাহার করে প্রাকৃতিক সম্পদ ইলিশ আহরণ সুযোগ করে দিয়ে উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষের জনজীবন স্বাভাবিক করে দিতে সরকারের পদক্ষেপ নেয়া উচিৎ। মৎস্যজীবীদের দাবী তাদের আয়ের একমাত্র পথ বন্ধ হওয়ায় তারা দরিদ্র সীমার নিচে বসবাস করছে।

বাংলাদেশ মৎস্যজীবী ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী বলেন, আমরা দেশের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। মৎস্য অধিদপ্তরের দেয়া সকল আইন আমাদের দেশের জেলেরা মেনে চলে। ইলিশ প্রজননের ২২ দিন ও জাটকা রক্ষায় ৯ মাস নিষেধাজ্ঞা পালনের পর ৬৫ দিনের মৎস্য অবরোধ যেন আমাদের জন্য গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

মোস্তফা চৌধুরী আরও জানান, একই বঙ্গোপসাগরে দুই ধরনের আইনকে মেনে নিতে পারছে না এ দেশের জেলেরা। তাই ভারত ও বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতি এক করে একই সময়ে বঙ্গোপসাগরে দু’দেশের জেলেদের মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি। ##

পাথরঘাটার তিন সন্তানের জননী ময়নার মৃত্যু রহস্য কি?

২০১১-২০১৬ | কোনো সংবাদ বা ছবি অন্য কোথাও প্রকাশ করবেন না

Development: Zahidit.Com

ঘোষনাঃ
Translate »