Latest news

মোরেলগঞ্জে টাকা না দেয়ায় সুন্দরবনের অর্ধ শতাধিক জেলে প্রত্যয়ন পায়নি

শনিবার, ১০ অক্টোবর ২০২০ | ১:২৭ পিএম | 546 বার

অক্টোবর ২০২০
রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
« সেপ্টেম্বর    
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
মোরেলগঞ্জে টাকা না দেয়ায় সুন্দরবনের অর্ধ শতাধিক জেলে প্রত্যয়ন পায়নি

ষ্টাফ রিপোর্টার ঃ

  বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের অর্ধ শতাধিক সুন্দরবনের জেলে টাকা না দেয়ায় ইউনিয়ন পরিষদ থেকে প্রত্যয়ন পায়নি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে জিউধরা বাজারে শুক্রবার দুপুরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে প্রতিবাদ জানিয়েছে জেলেরা।
সরেজমিন জানা গেছে, জিউধরা ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের সুন্দরবনে মাছ ধরতে যাওয়া জেলেদের সরকারি সহযোগীতা দেয়ার সুবিধার্থে জিউধরা ফরেষ্ট ক্যাম্প (বনবিভাগ) থেকে ইউনিয়ন পরিষদের প্রত্যয়ন পত্র জমা দিতে বলা হয়। আর এ জন্য প্রত্যয়ন পত্র সংগ্রহের জন্য ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের দ্বারস্থ হয় জেলেরা। কিন্তু ইউনিয়ন পরিষদ থেকে প্রতিটি প্রত্যয়ন পত্রের বিনিময় ৫শ টাকা করে উৎকোচ দাবি করা হয়। অনেক জেলে ইউনিয়ন তথ্য কেন্দ্র থেকে যথারীতি জেলেরা প্রত্যয়নপত্র প্রস্তুত করে। পরে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুর রহিম বাচ্চু’র স্বাক্ষর করাতে গিয়ে বিপাকে পড়ে জেলেরা। এ সময় যারা টাকা দিতে পেরেছে তাদেরই প্রত্যয়নপত্রে স্বাক্ষর দেয়া হয়। অর্ধ শতাধিক জেলে টাকা দিতে না পেরে স্বাক্ষরবিহীন প্রত্যয়ন নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছে।
প্রত্যয়নপত্র গ্রহনকারী জেলে আ. বারেক হাওলাদার, রোকন উদ্দিন খান, শুকুর হাওলাদার জানান, তারা প্রত্যেকেই নগদ ৫শ টাকা করে দিয়ে চেয়ারম্যানের কাছ থেকে প্রত্যয়ন পত্র গ্রহন করেছেন। জেলে লোকমান শেখ জানান, প্রত্যয়ন পত্র স্বাক্ষর করাতে গেলে চেয়ারম্যান তার আইডি কার্ডের ফটোকপিতে সত্যায়িত সিল স্বাক্ষরও করেন কিন্তু টাকা দিতে না পারায় তার প্রত্যয়ন পত্র স্বাক্ষর করেননি।
এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল রহিম বাচ্চু বলেন, প্রকৃত জেলেদের প্রত্যয়ন দেয়া হয়েছে। যারা প্রকৃত জেলে নয় তাদের প্রত্যয়ন দেয়া হয়নি। অর্থ কিংবা উৎকোচ গ্রহনের প্রশ্নই ওঠে না। একটি নির্বাচনী প্রতিপক্ষ তাকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য অপচেষ্টা চালাচ্ছে।

২০১১-২০১৬ | কোনো সংবাদ বা ছবি অন্য কোথাও প্রকাশ করবেন না

Development: Zahidit.Com

ঘোষনাঃ
Translate »